Car Tips and Tricks

গাড়ির যত্ন নেওয়ার ৭টি টিপস (শর্টকাট)

গাড়ি রক্ষণাবেক্ষণ করা কতটা কঠিন হতে পারে আমরা সকলেই জানি। আপনাকে এটি ধুয়ে ফেলতে হবে এবং কখনও কখনও আপনার ট্রাঙ্কে জমে থাকা জঞ্জালটি পরিষ্কার করতে হবে। এই ব্লগ পোস্টটি আপনাকে কীভাবে আপনার যানবাহনটির যত্ন নেবে তা গাইড দেবে এবং একে নতুন রাখার পরামর্শ দেবে!

আপনার প্রিয় সখের গাড়িটিকে দীর্ঘদিন পর্যন্ত ভালো রাখতে ও নিরাপদে ড্রাইভ করার জন্য সেটির নিয়মিত যত্ন নেওয়া ও রক্ষণাবেক্ষণ করা অত্যন্ত জরুরী। কারণ দীর্ঘদিন পর্যন্ত গাড়ির যত্ন না নেওয়ার ফলে সেটির বিভিন্ন অংশ অকার্যকর হয়ে যেতে পারে এবং গাড়ির সৌন্দর্যও নষ্ট হয়ে যেতে থাকে এর ফলে আপনার সখের গাড়িটির আয়ু দিন দিন কমতে থাকে এবং এটি দ্বারা দুর্ঘটনা হওয়ার হারও দিনকে দিন বাড়তে থাকে। তাই চলুন জেনে নেওয়া যাক, কিভাবে গাড়ির যত্ন নেওয়া যেতে পারে।

গাড়ির যত্ন নেওয়ার সকল গাইডলাইন ও বর্ষাকালে গাড়ির যত্ন

১। নিয়মিত ব্রেক পরীক্ষা করুন :

 গাড়ির অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হলো ব্রেক। গাড়ির ব্রেকে যদি কোন সমস্যা হয় তাহলে অনেক বড় দুর্ঘটনা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই নিয়মিত এটি রক্ষণাবেক্ষন করা অত্যন্তু জরুরী। কারণ গাড়ি চলার সময় প্রতিনিয়ত ব্রেকগুলো ক্ষয় হতে থাকে এবং একটি নিদির্ষ্ট সময় পর সেগুলো আর কাজ করে না তাই নিয়মিত এগুলো চেক করে পরিবর্তন করা দরকার। এবং অন্য কোন কারণেও যদি ব্রেক ঠিক মত কাজ না করে তাহলে তা সাথে সাথেই ঠিক করে নেওয়া উচিত। বৃষ্টিতে মোটরসাইকেল চালানোর জন্য নিয়মিত ব্রেক পরীক্ষা করা দরকার।

 

২। নিয়মিত গাড়ি ওয়াশ করুন :

গাড়ি পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য নিয়মিত ওয়াশ দেওয়া উচিত। এছাড়াও গাড়ির নিয়মিত ওয়াশ দিলে এতে ধুলা বালি বা কাদা ময়লা পানি জমে থাকে না যার ফলে গাড়ি অনেকগুলো ক্ষতির হাত থেকে বেচে যায় যেমন, ধুলাবালি পরে গাড়ির রং নষ্ট হওয়া, কাদা পানি লেগে থেকে গাড়ির বিভিন্ন স্থানে মরিচা ধরে যাওয়া ইত্যাদি।

 

৩। ইন্জিন ওয়েল অন্যান্য ওয়েল চেক করুন : 

গাড়ির ইন্জিন ওয়েল নিয়মিত চেক করুন এবং ওয়েলের লেভেল দেখে সেটি পরিবর্তন করার সময় হলে তা করে নিন। এছাড়াও গাড়ির ব্রেক ওয়েল, ট্রান্সমিশন ওয়েল, কুলিং লিকুয়েট, ইত্যাদি ভালোভাবে চেক করে তা পরিবর্তন করা প্রয়োজন হলে পরিবর্তন করে নিন। পাশাপাশি এগুলো ফিল্টারগুলো চেক করা দরকার।

 

৪। টায়ার প্রেশার চেক করুন :

গাড়ির টায়ার প্রেশার উপর গাড়ির পার্ফমেন্স ও দুর্ঘটনার কারণ অনেকাংশেই নির্ভর করে। তাই নিয়মিত টায়ার পেশার চেক করা উচিত। এর জন্য টায়ার প্রেশার চেক করার ডিজিটাল গ্যাজেট সংরক্ষণে রাখতে পারেন।

 

৫। ইনসুরেন্স করে রাখুন : 

গাড়ি যেহুত রাস্তায় চলবে তাই যে কোন সময়ই তা দুর্ঘটনার শিকার হতে পারে তখন সেটির খরচ পুশাতে ইনসুরেন্স খুব সাহায্য করে থাকে তাই চেষ্টা করুন ইনসুরেন্স করে তার সকল ডকুমন্টে গাড়ির সাথে রাখার।

সকল ব্র্যান্ডের কারের বাংলাদেশ মূল্য ও বিস্তারিত তথ্য জেনে নিতে পারবেন বিডিস্টল.কম এর ওয়েবসাইট থেকে।

একটি পরিষ্কার গাড়ী থাকার সুবিধাগুলি কেবল প্রসাধনী নয়। একটি নোংরা গাড়ি প্রকৃতপক্ষে ইঞ্জিনে অযৌক্তিক চাপ সৃষ্টি করতে পারে, যা উচ্চ জ্বালানী গ্রহণ এবং আরও ঘন ঘন রক্ষণাবেক্ষণের প্রয়োজন হতে পারে। আপনার গাড়িটি দুর্দান্ত এবং চলমান রাখার জন্য এখানে কয়েকটি টিপস দেওয়া হয়েছে!

৬) জানালা এবং আয়নাগুলি পরিষ্কার

আপনার জানালা এবং আয়নাগুলি পরিষ্কার রাখুন যাতে আপনি ড্রাইভিং করার সময় স্পষ্ট দেখতে পান। এতে গাড়ি চকচকে সৃষ্টি করে, এটি রাতে গাড়ি চালানো বা আবহাওয়ার খারাপ পরিস্থিতিতে নিরাপদ করে তোলে।

৭) আপনার যানবাহন থেকে সাপ্তাহিক সমস্ত আবর্জনা পরিষ্কার করুন

সাপ্তাহিক সমস্ত আবর্জনা এর মধ্যে খালি সোডা ক্যান, পুরানো খবরের কাগজ, ফাস্টফুডের মোড়ক ইত্যাদি ময়লা অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। এটি কেবল আপনার গাড়ীকেই সতেজ গন্ধ বজায় রাখবে তা নয়, এটি পোঁতা জাতীয় পোকার পোকার জঞ্জালগুলিতে বাসা বাঁধা থেকেও রক্ষা করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
error: Content is protected !!