Car Price (With Reviews)Car Tips and Tricks

(দাম ও রিভিউ) Mazda Axela Price in Bangladesh 2021 & Review

Brand/Manufacturer : Mazda japan
Car Name : Mazda axela
Model : 2015 to 2019
Price(bdt): 80,00,000 tk
Status: Available in Bangladesh

Displacement : 1500
Transmission : Automatic
Color :Any
Fuel System : Octane
length: 4.4 – 4.58m
height: 1.455 -1.51m
width: 1.795 – 1.795m
Maximum power: 99 – 264ps
Fuel Consumption: 10 – 30km/L
Drive Type: AWD/FF

Mazda Axela is the most underrated car in the market of Bangladesh. This car is as durable as the other 10 Japanese cars, and is less expensive than the Premium Lion but more feature-rich than the Premium Lion. The blind fan of Premelion is responsible.

The car, which was sold as Mazda Axela in Japan until 2016, is sold worldwide as Mazda 3, and production of the 4th generation of the car has started in 2019, and from this model, the name Axila has been removed and is now being sold in Japan as Mazda 3. The car is one of the best-selling compact sedans in the world.

Since there is no Mazdar dealership in Bangladesh, no one has brought the latest model in the country so far, and since the 3rd generation Axillai is still being sold more in the reconditioned market, in today’s post I will talk about the 2013-2017 Axillae i.e. 3rd generation model.

The car is incredibly beautiful to look at inside and out, in my opinion the Mazda Axila is the most beautiful of all the compact sedans available in the country in terms of both exterior and interior looks.

The Primilion is a royal looking car and the Civic is a fully sporty looking car. But if you want a combination of the two, Mazda Axela is for you. The car is designed in Mazda’s “Kodo-Soul of Motion” design language.

The car has a very curvy design that creates a wide stance like a sportscar that the drivers of this car will think when they see the body behind the looking glass, “Wow! I’m driving a very sporty looking car.

” A large grille with nickel / chrome border on the front that matches the headlights. When you see this car, you may think that it is an American car because it is designed that way. There are some similarities in the design of this car with the American Chevrolet Malibu, and the headlights and taillights look like the Infiniti Q50 / Nissan Skyline sports-sedan in a budget package.

The car’s headlights and taillights are both beautiful, with an LED strip attached to both ends and a BMW-like angel-eye style around the main bulb, which acts as a DRL for the headlights. The car’s turn signal lights are placed just above the foglights at the bottom, a common design language for American cars.

All-in-all, this car is incredibly beautiful to look at. The car has a hatchback model that looks more elegant and sporty and in practical terms it is wiser to buy the Axilla hatchback. Because of the more comfortable suspension, comfort on long journeys, driving feel, bootspace and legroom, any hatchback or wagon in the Daily Usage is always ahead of the sedan, and even more so in the case of the Axilla because the Axela hatchback model looks more beautiful and smarter than the sedan.

Fun and relaxing. I previously posted a post about the Axilla hatchback, the post received about 5,000 reactions when it was uploaded from the Carhab page because everyone liked the car and many even said that the car looked like a low-budget version of the Ferrari GTC4 Lusso Supercar.

There are 6 engine options for the car market, but since we only get the Japanese domestic market model, we will talk about the 3 engine choices in Japan in the 3rd generation: – 1) Naturally aspirated 1500 cc engine (115 H); 2) 1500 cc turbocharged diesel engine (103 HP) which is only available in Axela Sport hatchback; 3) 2000 cc hybrid engine (engine-only: – 99 HP, combined: – 135 HP); And 4) 2200 cc turbocharged diesel engine (173 HP).

Mazda Axela price in bangladesh and in-depth review
Let’s take a look at the features and upsides of the Mazda Axela car: –

1) The point at which Axela will be mechanically ahead of the Civic and Premillion is the gearbox of the car. 1500 cc and 2200 cc models have 2 transmission options. An 8-gear automatic transmission and a 6-gear manual transmission.

Fancy drivers who like to drive manual gear will be able to buy the manual which they will get only in case of hatchback CV and there is no manual option in the premium. For those who need auto gear, Axela is ahead because Civic and Primillionaire’s auto gear is CVT.

The CVT is a transmission that has no gears, only a few gear ratios are shared on top of the belt in the gearbox which go up and down according to the engine speed of the car, which makes the CVT gear car more fuel efficient but not aggressive.

But in this case, the Accelerator Auto gear is very driving focused because it is a normal 6-gear transmission so that the car will shift several gears in low speed driving to save oil by keeping the RPM in low range, while in high speed cruising, the manual gears will shift and shift the real gears manually.

Another thing is that the mechanism of CVT gearbox is quite complicated which makes repair and maintenance more expensive than normal gearbox.

2) The headlights of the car are bi-xenon lamps which are cut faster than the LEDs but will give a brighter light than the LEDs as long as they are in service. The Axilla also has 16 ”rims in the lowest grade and all 16” rims in the upper grade from S grade which looks a lot like the stock rims of many Tesla Model S

3) Accelerator interior is very smart. The car comes with high-quality cloth seats in the lower grade, and the upper grade has the option of leather upholstery with two front seats being semi-bucket. The 1500cc and 2200cc turbo-diesel models have suede leather seats for sporty interiors.

Although the car’s dashboard driver is not focused, it is quite sporty, the steering wheel is a nicely shaped steering wheel, and the gauge cluster is beautifully made of a mixture of analog and digital, with an analog tachometer right in the middle and a small display at the bottom. , Real-time fuel economy shows everything.

The feature that makes this car unique in this budget is the heads-up-display. When the button is pressed, a transparent glass sheet stands on top of the gauge cluster, allowing speed to be seen on the road without looking at the gauge cluster, and connecting the phone and turning on the map to show which directions to take to reach the destination and how far the destination is.

4) The car’s entertainment system is the best in this budget. There is a 6 ”size heads-up-unit with a MazdaConnect software user interface. Through this system, the phone can connect to the car, use the phone’s internet data, map the car, play songs, make calls, receive calls, send SMS to someone, and so on.

This display can be controlled by touch, but if desired, there are a few buttons and 2 dials on the back of the gear knob with which the whole display can be controlled and the volume has to be controlled with the smallest of those 2 dials.

The car’s heads-up unit and user interface software have a lot in common with BMW’s famous i-Drive system, and the control panel with dials is similar to the Audi MMI system.

There’s a button on the steering wheel that can be pressed to call someone on the phonebook, or the name of a place on the map, or the name of a song on the playlist. If the car clearly understands, the car will follow the command with a voice command. .

The car has 4 high-quality Bose speakers which are the best in this budget. All-in-all, this is one of the best infotainment systems available on the market. Interestingly, when buying most JDM cars, it is common to see that the infotainment system that comes from the factory is opened before or after arriving in the country and a cheap Chinese set is installed so that there are no sophisticated facilities.

But Mazdar’s opening of this system is a tough thing at first due to the heads-up design, even if one opens it, if it is replaced with Chinese, it will lose its soul because all the controls starting from its volume control are on the buttons and dials on the back of the gear knob.

He can’t even open it and sell it in the thief’s market because whoever buys it from the thief’s market has his control panel in that car, he can’t even buy and drive it. Therefore, in all cases, this genuine system is available in all the Axils that come to Bangladesh. Mazda Axela price in bangladesh in 2021

5) Almost all of us know about the Naujubillah-Marka road in Bangladesh, and it is not possible to say when and where to get stuck on this road, which is why you should always buy a four-wheel-drive car if you can get it within the budget.

Axela will once again be ahead of its competitors in this topic. If you want to get a four-wheel drive in Primillion, you have to buy the 1800 cc model which no one buys for tax, and the CV has no option of four-wheel-drive. The Mazda Axilla is the only one to offer four-wheel-drive in both the 1500 cc model, and the 2200 cc turbo-diesel model also offers four-wheel-drive.

8) Fuel economy is very good due to Skyactive technology in every engine of Mazda Accelerator : – 1500 cc octane model is available in Dhaka near Primillion i.e. 10-12 km / liter in Dhaka, 2000 cc hybrid model is available in Dhaka near Prius in 1 km.

The liter, 1500cc diesel model, although no one brings a hatchback, is the most cost-effective model because in real-life situations, the diesel model gives a mileage of 22km / liter on Japanese roads, which is at least 11km / liter in Dhaka. The price of diesel is Rs 75 per liter, which means that the cost of oil will be the same as the hybrid, but in the meantime, there is no need to worry about wasting the battery, the car will run smoothly for ages. The car also has idling start-stop technology that saves more oil by keeping the engine off while sitting in a jam.

6) Many people say that Mazdar parts are not available alone. But there is no reason to worry. Because, the Accelerator hybrid system is the same system as the Toyota Prius.

Mazda licenses the Prius hybrid system from Toyota and produces it, and when the battery cells in the Prius start to break down after running 200,000 km, just replace a few damaged cells at a price of Rs 6,000 per cell, just like in Axela.

The only difference between the Axela Hybrid and the Prius Drivetrain is the replacement of the 1800cc engine with a Mazda-built 2000cc engine with Mazda-made Skyactive technology, whose acceleration is much more exciting than Prius’s boring driving. Now let’s come to the 2200 cc turbo-diesel model.

If one wants to get the same acceleration as the Honda Civic with four-wheel-drive traction at the expense of oil near the hybrid, then the perfect car for him would be the Accelerator 2200cc turbo-diesel model.

The engine has 163 horsepower which is only 2 horsepower less than the Honda Civic Turbo, the Honda Civic Turbo has a torque of 240 Newton-meters, while the Axela Turbo-Diesel has a torque of 420 Newton-meters which is equivalent to the Porsche 618 Cayman S and the Honda C R (410nm), Mitsubishi Lancer Evo Ten (36nm) and Subaru WRX STI (400nm) more than famous sportscars. Now, you can imagine what the work of torque is.

Torque is the force required to start a car from a stop, so the higher the torque, the less time it takes for the car to accelerate to 0-100 km / h.

Famous Mazda tuning brand BBR has come out with a tuning kit worth Rs 120,000 which, if properly tuned, will produce 245 horsepower and 530 Nm of torque, equivalent to an entry-level sportscar, with horsepower and supercar category torque.

Done in such a way that normal city driving will save more oil than stock. The Axela car weighs more than the Civic and Premillion, has higher driving confidence and higher speed stability, and offers unmatched grip in the four-wheel-drive format, which is essential for high-speed.

If someone buys a 2200cc turbo-diesel four-wheel-drive model of a red Axela hatchback for Rs 35-40 lakh, tunes the BBR, installs HKS’s exhaust system, installs a bigger turbocharger and upgrades the intake system, a nice one.

He also installs aerodynamic bodykits all over his body, which means that if he spends another Rs 10 lakh on the back of the car, he will be able to make this car a perfect daily-driven 300 horsepower fuel cost saving hot-hatch for a total of Rs 45-50 lakh.

One of the things that makes people dizzy and performance-wise is that if you go on track, you will be able to compete with the stock Honda Civic Type R and stock Mitsubishi Evo-10 which is priced at Rs 90 lakh.

In addition to the earlier statement that the Axilla is a combination of sportiness and executive, the car’s shock absorber has been softened to ensure that the car does not feel a little uncomfortable sitting in the back seat like a Civic with a Daily User driver.

There is a maximum stability like Civic when driving hard and there is not a single drop of body roll. In other words, the Mazdar engineers have balanced the sporty feeling and comfort

8) The brakes of the car are the best in this budget. Disc ABS brakes on 4 wheels, whose brake force distribution is very nice which makes this car slower than normal premium in normal braking and parked long before premium in hard braking which can draw a line between life and death in an emergency situation.

Also, from the maintenance price point, it is necessary to change the brake pads of a premium 30-40 thousand km in a row, but Mazda Accelerator brake pads can serve about 80-90 thousand km once replaced.

9) Mazdar Proactive Safety System is very good: – i) Adaptive Cruise Control, ii) Lane Departure and Lane Keep Assist, iii) Pre-Collision Braking System, iv) Auto High-Beam etc.

All in all, according to my personal opinion, buying this car on the budget of Primio-Elion is a hundred times better decision.

Now let’s come to the downsides of Mazda Axela car and some misconceptions that I will break today: –

1) Many people say that there is very little space in the back of Mazda Axilla, you can’t sit blah blah. Many people in our country are confused by the opinions of many foreign reviewers as the height of the people in Western countries is higher and the passengers in the front seats have to pull back the seats to get more legroom.

But for Bangladeshis who have reviewed, at least so far I have not seen a review where it is said that the legroom is very limited. But yes, if your family is about 6 feet tall and everyone is fat, it will be a little uncomfortable for everyone in the family to travel together, even at the premium.

2) Everyone knows that LPG can be used in the case of Primio-Eleon, and many people say that CNG is doing more (which is not good for the engine), but at least I haven’t heard of anyone in Axilla yet. But yes, I don’t think there will be any problem if you do LPG by sequential injection from a good conversion workshop.

3) Depending on the model and condition of the car, the price is equal to the premium, but the resale value is a little less. It’s not the fault of the car, it’s the fault of the Toyota-crazy Bengali. The resale value of such a good car today is low.

4) There is a saying that Mazdar parts are not available at all and what is available is more expensive. Here I want to say one thing. People talk a lot about the availability of parts of Toyota.

Yes, Toyota parts are very available and cheap, but they are Chinese and Thai replica parts. People put these Chinese parts in their Corolla and Premilyon and they serve 1 in 4 parts of Japanese genuine parts.

If someone goes to buy Toyota Genuine Japanese parts, he will have to get the same speed as he has to find it, but once he manages and uses it, his engine will be good and he will not need parts for many days.

This is exactly what happens in Mazda. Mazda Accelerator has a lot of presence in Bangladesh but it is 1 in 4 compared to Primio-Eleon.

Due to this, accelerator parts are also less available in the parts market. Now those who sell Accelerator parts know that Excel owners will never buy Chinese parts, so whoever brings Accelerator parts to the country, most of the time they bring genuine Japanese parts, whose price and durability are higher than those replica parts of Toyota.

That is, suppose a premium-owner using replica parts has to run to the workshop with a car and change parts three times a year, then Axila-owner using genuine parts has to do it once a year.

Now understand who got the benefit. Earlier in the day I posted about Axela in the Carhab group, I was so disappointed to see that people were just ha-hut about the Mazda parts that I couldn’t go into detail today.

5) Buying the Mazda Axela Hybrid model will save oil cost, but buying cars will cost 3-4 lakh rupees more than 1500 cc because the import duty, registration and AIT of 2000 cc hybrid will all be more than 1500 cc.
So that was the Mazda Axela price in bangladesh in-depth review.

বাংলাদেশের বাজারের সবচেয়ে আন্ডাররেটেড গাড়ি মাজদা অ্যাক্সেলা। এই গাড়িটি জাপানের অন্যান্য 10 টি গাড়ির মতোই টেকসই এবং প্রিমিয়াম সিংহের চেয়ে কম ব্যয়বহুল তবে প্রিমিয়াম সিংহের চেয়ে বৈশিষ্ট্য সমৃদ্ধ। প্রিমিলিয়নের অন্ধ পাখা দায়বদ্ধ।

২০১ 2016 অবধি জাপানের মাজদা অ্যাক্সেলা হিসাবে বিক্রি হওয়া গাড়িটি বিশ্বজুড়ে মাজদা 3 হিসাবে বিক্রি হয় এবং গাড়িটির চতুর্থ প্রজন্মের উত্পাদন 2019 সালে শুরু হয়েছিল এবং এই মডেল থেকে অক্ষ নামটি সরিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং এখন তা করা হচ্ছে জাপানে মাজদা ৩ হিসাবে বিক্রি হয়েছে The গাড়িটি বিশ্বের সর্বাধিক বিক্রিত কমপ্যাক্ট সেডানগুলির একটি।

যেহেতু বাংলাদেশে কোন মাজদার ডিলারশিপ নেই, তাই দেশে এখনও পর্যন্ত কেউ আধুনিকতম মডেল আনেনি এবং তৃতীয় প্রজন্মের অ্যাক্সিলাই এখনও পুনঃনির্দেশিত বাজারে বেশি বিক্রি হচ্ছে, আজকের পোস্টে আমি ২০১৩-২০১x অক্সিলি নিয়ে কথা বলব অর্থাৎ তৃতীয় প্রজন্মের মডেল।

গাড়িটি ভিতরে এবং বাইরে দেখতে অবিশ্বাস্যভাবে সুন্দর, আমার মতে মাজদা অজিলা বাহ্য এবং অভ্যন্তরীণ উভয় বর্ণের দিক থেকে দেশে উপলব্ধ সমস্ত কমপ্যাক্ট সেডানগুলির মধ্যে সর্বাধিক সুন্দর।

প্রিমিলিয়ন একটি রয়্যাল লুকিং গাড়ি এবং সিভিক সম্পূর্ণ স্পোর্টিং লুকিং গাড়ি। তবে আপনি যদি দুটিয়ের সংমিশ্রণ চান তবে মাজদা অ্যাক্সেলা আপনার জন্য। গাড়িটি মজদার “কোডো-সোল অফ মোশন” ডিজাইনের ভাষায় ডিজাইন করা হয়েছে।

গাড়ির খুব বক্ররেখা নকশা রয়েছে যা স্পোর্টসকারের মতো প্রশস্ত অবস্থান তৈরি করে যা এই গাড়ির চালকরা যখন চেহারার কাচের পিছনে দেহটি দেখবেন তখন ভাববেন, “বাহ! আমি খুব খেলাধুলার মতো গাড়ী চালাচ্ছি।

”শীর্ষে নিকেল / ক্রোম সীমানা সহ একটি বড় গ্রিল যা হেডলাইটগুলির সাথে মেলে। আপনি যখন এই গাড়িটি দেখেন, আপনি ভাবতে পারেন যে এটি একটি আমেরিকান গাড়ি কারণ এটি সেভাবে ডিজাইন করা হয়েছে। আমেরিকান শেভ্রোলেট মালিবুর সাথে এই গাড়ির নকশার কিছু মিল রয়েছে এবং হেডলাইটস এবং টেললাইটগুলি বাজেটের প্যাকেজে ইনফিনিটি কিউ 50 / নিসান স্কাইলাইন স্পোর্টস-সেডানের মতো দেখায়।

গাড়ির হেডলাইট এবং টেললাইট উভয়ই সুন্দর, একটি এলইডি স্ট্রিপ উভয় প্রান্তের সাথে সংযুক্ত এবং প্রধান বাল্বের চারদিকে একটি BMW- এর মতো অ্যাঞ্জেল-আই স্টাইল, যা হেডলাইটগুলির জন্য ডিআরএল হিসাবে কাজ করে। গাড়ির টার্ন সিগন্যাল লাইটগুলি নীচে ফোগলাইটের ঠিক উপরে রাখা হয়েছে, আমেরিকান গাড়িগুলির জন্য একটি সাধারণ নকশার ভাষা।

সব মিলিয়ে, এই গাড়িটি দেখতে অবিশ্বাস্যভাবে সুন্দর। গাড়িতে একটি হ্যাচব্যাক মডেল রয়েছে যা আরও মার্জিত এবং খেলাধুলাপূর্ণ দেখায় এবং ব্যবহারিক দিক থেকে এটি অ্যাক্সিলা হ্যাচব্যাকটি কেনা বুদ্ধিমানের কাজ। অধিকতর আরামদায়ক স্থগিতাদেশ, দীর্ঘ যাত্রায় স্বাচ্ছন্দ্য, ড্রাইভিং অনুভূতি, বুটস্পেস এবং লেগরুমের কারণে, ডেলি ইউসে ব্যবহারের যে কোনও হ্যাচব্যাক বা ওয়াগন সর্বদা সেডানের চেয়ে এগিয়ে থাকে, এবং আরও বেশি অক্ষের ক্ষেত্রে যেমন এক্সিলার হ্যাচব্যাক মডেল দেখায় সেডানের চেয়ে আরও সুন্দর এবং স্মার্ট।

মজা এবং শিথিল। আমি এর আগে অক্ষিলা হ্যাচব্যাক সম্পর্কে একটি পোস্ট পোস্ট করেছি, পোস্টটি কারহাব পৃষ্ঠা থেকে আপলোড করার সময় প্রায় 5,000 প্রতিক্রিয়া পেয়েছিল কারণ সবাই গাড়িটি পছন্দ করে এবং অনেকে এমনকি বলেছিল যে গাড়িটি ফেরারি জিটিসি 4 লুসো সুপারকারের একটি স্বল্প-বাজেটের সংস্করণের মতো দেখায়।

গাড়ী বাজারের জন্য 6 ইঞ্জিন বিকল্প রয়েছে, তবে যেহেতু আমরা কেবল জাপানি দেশীয় বাজারের মডেল পাই, আমরা জাপানে 3 য় প্রজন্মের 3 ইঞ্জিন পছন্দ সম্পর্কে কথা বলব: – 1) প্রাকৃতিকভাবে উচ্চাকাঙ্ক্ষী 1500 সিসি ইঞ্জিন (১১১ এইচ); 2) 1500 সিসি টার্বোচার্জড ডিজেল ইঞ্জিন (103 এইচপি) যা কেবল এক্সেলা স্পোর্ট হ্যাচব্যাকে উপলভ্য; 3) 2000 সিসি হাইব্রিড ইঞ্জিন (কেবল ইঞ্জিন: – 99 এইচপি, সংযুক্ত: – 135 এইচপি); এবং 4) 2200 সিসি টার্বোচার্জড ডিজেল ইঞ্জিন (173 এইচপি)।

বাংলাদেশ এবং গভীরতা পর্যালোচনাতে মাজদা অ্যাক্সেলা দাম
আসুন মাজদা অ্যাক্সেলা গাড়ির বৈশিষ্ট্যগুলি এবং উপভোগগুলি একবার দেখে নেওয়া যাক: –

1) অক্ষর সিভিক এবং প্রিমিলিয়নের তুলনায় যান্ত্রিকভাবে এগিয়ে থাকবে সেই পয়েন্টটি গাড়ির গিয়ারবক্স। 1500 সিসি এবং 2200 সিসি মডেলের 2 সংক্রমণ বিকল্প রয়েছে। একটি 8 গিয়ার স্বয়ংক্রিয় সংক্রমণ এবং একটি 6 গিয়ার ম্যানুয়াল ট্রান্সমিশন।

অভিনব ড্রাইভার যারা ম্যানুয়াল গিয়ার ড্রাইভ করতে চান তারা ম্যানুয়ালটি কিনতে সক্ষম হবেন যা তারা কেবল হ্যাচব্যাক সিভি ক্ষেত্রেই পাবেন এবং প্রিমিয়ামে কোনও ম্যানুয়াল বিকল্প নেই। যাদের অটো গিয়ার দরকার তাদের জন্য অ্যাক্সেলা এগিয়ে কারণ সিভিক এবং প্রিমিলিয়নেয়ারের অটো গিয়ারটি সিভিটি।

সিভিটি একটি ট্রান্সমিশন যার কোন গিয়ার নেই, কেবল কয়েকটি গিয়ার অনুপাত গিয়ারবক্সে বেল্টের উপরে ভাগ করা হয় যা গাড়ির ইঞ্জিনের গতি অনুসারে উপরে এবং নিচে যায় যা সিভিটি গিয়ার গাড়িটিকে আরও জ্বালানী দক্ষ করে তোলে তবে তা নয় আক্রমণাত্মক

তবে এক্ষেত্রে এক্সিলারেটর অটো গিয়ারটি খুব ড্রাইভিং ফোকাস করছে কারণ এটি একটি সাধারণ 6-গিয়ার সংক্রমণ, যাতে গাড়িটি আরপিএমকে কম পরিসরে রেখে তেল সাশ্রয় করতে কম গতি সম্পন্ন ড্রাইভিংয়ে বেশ কয়েকটি গিয়ার সরিয়ে দেয়, যখন উচ্চ গতির ক্রুজ হয় , ম্যানুয়াল গিয়ারগুলি ম্যানুয়ালি রিয়েল গিয়ারগুলি স্থানান্তরিত করবে।

আরেকটি বিষয় হ’ল সিভিটি গিয়ারবক্সের প্রক্রিয়াটি বেশ জটিল, যা মেরামতের এবং রক্ষণাবেক্ষণকে সাধারণ গিয়ারবক্সের চেয়ে ব্যয়বহুল করে তোলে।

2) গাড়ির হেডলাইটগুলি দ্বি-জেনন ল্যাম্প যা এলইডিগুলির তুলনায় দ্রুত কাটা হয় তবে তারা যতক্ষণ চাকরিতে থাকবেন ততক্ষণ এলইডিগুলির চেয়ে আরও উজ্জ্বল আলো দেবে। অক্সিলায় এস গ্রেড থেকে উচ্চ গ্রেডে 16 “রিম এবং সমস্ত 16” রিম রয়েছে যা অনেকগুলি টেসলা মডেল এস এর স্টক রিমগুলির মতো দেখতে অনেকটা দেখাচ্ছে looks

3) এক্সিলেরেটর ইন্টিরিয়র খুব স্মার্ট। গাড়িটি নিম্ন গ্রেডের উচ্চমানের কাপড়ের আসনগুলির সাথে আসে এবং উপরের গ্রেডে চামড়ার গৃহসজ্জার বিকল্প রয়েছে যার সামনে দুটি আসন রয়েছে আধা-বালতি। 1500 সিসি এবং 2200 সিসি টার্বো-ডিজেল মডেলগুলিতে খেলাধুলার অভ্যন্তরগুলির জন্য চামড়ার আসন রয়েছে।

যদিও গাড়ির ড্যাশবোর্ড ড্রাইভারটি মনোযোগী নয়, এটি বেশ খেলাধুলার, স্টিয়ারিং হুইলটি একটি দুর্দান্ত আকৃতির স্টিয়ারিং হুইল এবং গেজ ক্লাস্টারটি সুন্দরভাবে এনালগ এবং ডিজিটালের মিশ্রণ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে, যার মাঝখানে একটি এনালগ টেকোমিটার রয়েছে এবং একটি ছোট নীচে প্রদর্শন করুন। , রিয়েল-টাইম জ্বালানী অর্থনীতি সবকিছু দেখায়।

এই গাড়িটি এই বাজেটে অনন্য করে তোলে এমন বৈশিষ্ট্য হ’ল হেড-আপ-ডিসপ্লে। বোতামটি টিপে গেলে, গেজ ক্লাস্টারের উপরে একটি স্বচ্ছ কাচের শীট দাঁড়িয়ে আছে, গেজ ক্লাস্টারের দিকে না তাকিয়ে রাস্তায় গতি দেখা দেওয়ার অনুমতি দেয় এবং ফোনে সংযোগ করে মানচিত্রটি চালু করে কোন দিকটি পৌঁছতে হবে তা দেখানোর জন্য গন্তব্য এবং গন্তব্য কত দূর।

4) গাড়ির বিনোদন সিস্টেমটি এই বাজেটে সেরা। মজদা কানেক্ট সংযুক্ত সফটওয়্যার ব্যবহারকারী ইন্টারফেস সহ একটি 6 “আকারের হেড-আপ-ইউনিট রয়েছে। এই সিস্টেমের মাধ্যমে ফোনটি গাড়ীর সাথে সংযোগ করতে পারে, ফোনের ইন্টারনেট ডেটা ব্যবহার করতে পারে, গাড়িটি ম্যাপ করতে পারে, গান করতে পারে, কল করতে পারে, কল পেতে পারে, কারও কাছে এসএমএস প্রেরণ করতে পারে এবং আরও অনেক কিছু করতে পারে।

এই প্রদর্শনটি স্পর্শের মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করা যেতে পারে, তবে ইচ্ছা করলে গিয়ার নকটির পিছনে কয়েকটি বোতাম এবং 2 ডায়াল রয়েছে যার সাহায্যে পুরো প্রদর্শনটি নিয়ন্ত্রণ করা যায় এবং সেই 2 ডায়ালগুলির মধ্যে সবচেয়ে ছোট দিয়ে ভলিউমটি নিয়ন্ত্রণ করতে হয়।

গাড়ির হেড-আপ ইউনিট এবং ইউজার ইন্টারফেস সফটওয়্যারটির বিএমডাব্লু এর বিখ্যাত আই-ড্রাইভ সিস্টেমের সাথে প্রচুর মিল রয়েছে এবং ডায়াল সহ নিয়ন্ত্রণ প্যানেল অডি এমএমআই সিস্টেমের মতো similar

স্টিয়ারিং হুইলে একটি বোতাম রয়েছে যা ফোনবুকে কাউকে কল করতে চাপতে পারে, বা মানচিত্রে কোনও জায়গার নাম বা প্লেলিস্টে একটি গানের নাম। গাড়িটি স্পষ্টভাবে বুঝতে পারলে গাড়িটি ভয়েস কমান্ডের সাহায্যে কমান্ডটি অনুসরণ করবে। ।

গাড়িতে 4 টি উচ্চ-মানের বোস স্পিকার রয়েছে যা এই বাজেটের সেরা। সব মিলিয়ে এটি বাজারে উপলভ্য সেরা ইনফোটেইনমেন্ট সিস্টেমগুলির মধ্যে একটি। মজার বিষয় হচ্ছে, বেশিরভাগ জেডিএম গাড়ি কেনার সময়, সাধারণভাবে দেখা যায় যে কারখানা থেকে আগত ইনফোটেনমেন্ট সিস্টেমটি দেশে আসার আগে বা পরে খোলা হয় এবং একটি সস্তা চীনা সেট ইনস্টল করা হয় যাতে কোনও অত্যাধুনিক সুযোগ না থাকে।

তবে মাজদার এই সিস্টেমটি খোলার বিষয়টি প্রথমে একটি কঠিন বিষয় হ’ল মাথা আপ নকশার কারণে, যদি কেউ এটি খুললেও, যদি এটি চীনা দ্বারা প্রতিস্থাপন করা হয়, তবে এটি তার প্রাণ হারিয়ে ফেলবে কারণ এর ভলিউম নিয়ন্ত্রণ থেকে শুরু হওয়া সমস্ত নিয়ন্ত্রণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে গিয়ার নকটির পিছনে বোতাম এবং ডায়ালগুলি।

তিনি এটি খুলতে এবং চোরের বাজারে বিক্রিও করতে পারবেন না কারণ যে কেউ চোরের বাজার থেকে এটি কিনে তার গাড়িতে তার কন্ট্রোল প্যানেল থাকে, সে এমনকি এটি কিনতে বা চালাতেও পারে না। অতএব, সব ক্ষেত্রেই এই আসল ব্যবস্থাটি বাংলাদেশে আসা সমস্ত অক্ষগুলিতে পাওয়া যায় is 2021 সালে বাংলায় মাজদা অ্যাক্সেলার দাম

৫) বাংলাদেশের নাজুবিল্লাহ-মার্কা সড়ক সম্পর্কে আমরা প্রায় সবাই জানি এবং এই রাস্তায় কখন এবং কোথায় আটকা পড়তে হবে তা বলা যায় না, এ কারণেই আপনি যদি পারেন তবে সর্বদা একটি চার চাকা ড্রাইভ গাড়ি কেনা উচিত? বাজেটের মধ্যে এটি পেতে।

আজেলা আবার এই বিষয়ে তার প্রতিযোগীদের চেয়ে এগিয়ে থাকবে। আপনি যদি প্রিমিলিয়নে একটি ফোর-হুইল ড্রাইভ পেতে চান তবে আপনাকে 1800 সিসির মডেল কিনতে হবে যা কেউ ট্যাক্সের জন্য কিনে না এবং সিভিতে ফোর-হুইল ড্রাইভের বিকল্প নেই। মাজদা অ্যাক্সিলার একমাত্র 1500 সিসি উভয় মডেলের ফোর-হুইল ড্রাইভ এবং 2200 সিসি টার্বো-ডিজেল মডেলটিতেও চার চাকা ড্রাইভ উপলব্ধ রয়েছে।

8) মাজদা এক্সিলারেটরের প্রতিটি ইঞ্জিনে স্কাইঅ্যাকটিভ প্রযুক্তির কারণে জ্বালানী অর্থনীতি খুব ভাল: – 1500 সিসি অক্টেন মডেল Dhakaাকায় প্রিলিমিলের কাছে অর্থাৎ 10-12 কিমি / লিটারে isাকায় পাওয়া যায়, 2000 সিসির হাইব্রিড মডেল প্রাইস ইন নিকটে Dhakaাকায় পাওয়া যায় Km০ কিমি।

লিটার, 1500 সিসি ডিজেল মডেল, যদিও কেউ হ্যাচব্যাক নিয়ে আসে না, এটি সবচেয়ে ব্যয়বহুল মডেল কারণ বাস্তব জীবনের পরিস্থিতিতে ডিজেল মডেল জাপানি রাস্তায় 22 কিমি / লিটার মাইলেজ দেয় যা কমপক্ষে 11 কিলোমিটার / লিটার Dhakaাকা ডিজেলের দাম প্রতি লিটারে 75 রুপি, যার অর্থ তেলের দাম সংকর হিসাবে একই হবে, তবে এর মধ্যে, ব্যাটারি নষ্ট করার বিষয়ে চিন্তা করার দরকার নেই, গাড়িটি যুগে যুগে মসৃণভাবে চলবে। গাড়িতে অলস স্টার্ট-স্টপ প্রযুক্তি রয়েছে যা জ্যামে বসে ইঞ্জিন বন্ধ রেখে আরও তেল সাশ্রয় করে।

)) অনেকে বলেন যে মাজদার অংশগুলি একা পাওয়া যায় না। তবে চিন্তার কোনও কারণ নেই। কারণ, এক্সিলারেটর হাইব্রিড সিস্টেমটি টয়োটা প্রাইসের মতো একই সিস্টেম।

মাজদা টয়োটা থেকে প্রাইস হাইব্রিড সিস্টেম লাইসেন্স করে এবং এটি উত্পাদন করে এবং প্রাইস-এর ব্যাটারি সেলগুলি যখন 200,000 কিলোমিটার চলার পরে ভেঙে যেতে শুরু করে, তখন কেবল অ্যাক্সেলার মতো প্রতি সেলটিতে ,000,০০০ রুপিতে কয়েকটি ক্ষতিগ্রস্থ কোষ প্রতিস্থাপন করুন।

অ্যাক্সেলা হাইব্রিড এবং প্রিয়াস ড্রাইভট্রিনের মধ্যে একমাত্র পার্থক্য হ’ল 1800 সিসি ইঞ্জিনটি মাজদা-নির্মিত 2000 সিসি ইঞ্জিনের সাথে মজদা-তৈরি স্কাইঅ্যাকটিভ প্রযুক্তির প্রতিস্থাপন, যার ত্বরণ প্রিয়াসের বিরক্তিকর ড্রাইভিংয়ের চেয়ে অনেক বেশি আকর্ষণীয়। এখন আসুন 2200 সিসি টার্বো-ডিজেল মডেলটি আসুন।

যদি কেউ হাইব্রিডের নিকটে তেল ব্যয় করে ফোর-হুইল-ড্রাইভ ট্র্যাকশন সহ হোন্ডা সিভিকের মতো একই ত্বরণ পেতে চায় তবে তার জন্য উপযুক্ত গাড়িটি এক্সিলারেটর 2200 সিসি টার্বো-ডিজেল মডেল হবে।

ইঞ্জিনটিতে ১3৩ অশ্বশক্তি যা হন্ডা সিভিক টার্বোর চেয়ে মাত্র ২ অশ্বশক্তি কম, হোন্ডা সিভিক টার্বোর একটি টর্ক রয়েছে ২৪০ নিউটন-মিটার, আর অ্যাক্সেলা টার্বো-ডিজেলের একটি টর্ক 420 নিউটন-মিটার যা পোর্শের সমান বিখ্যাত স্পোর্টসকার্সের চেয়ে 618 কেম্যান এস এবং হোন্ডা সিআর (410nm), মিতসুবিশি ল্যান্সার ইভো টেন (36nm) এবং সুবারু ডাব্লুআরএক্স এসটিআই (400nm) বেশি। এখন, আপনি কল্পনা করতে পারেন টর্কের কাজটি কী।

একটি স্টপ থেকে গাড়ি শুরু করার জন্য টর্ক হ’ল প্রয়োজনীয় শক্তি, সুতরাং যত বেশি টর্ক, গাড়িটি 0-100 কিমি / ঘন্টা গতিতে কম সময় নেয় takes

বিখ্যাত মাজদা টিউনিং ব্র্যান্ড বিবিআর ১২০,০০০ টাকার একটি টিউনিং কিট নিয়ে এসেছে, যা সঠিকভাবে টিউন করা গেলে 245 হর্সপাওয়ার এবং 530 এনএম টর্ক তৈরি করবে, যা একটি এন্ট্রি-লেভেল স্পোর্টসকারের সমতুল্য, অশ্বশক্তি এবং সুপারকার ক্যাটাগরির টর্কযুক্ত।

এমনভাবে সম্পন্ন হয়েছে যে সাধারণ শহর চালনা স্টকের চেয়ে বেশি তেল সাশ্রয় করে। অ্যাক্সেলা গাড়িটির ওজন সিভিক এবং প্রিমিলিয়নের চেয়ে বেশি, ড্রাইভিংয়ের আত্মবিশ্বাস এবং উচ্চ গতির স্থিতিশীলতা রয়েছে, এবং ফোর-হুইল-ড্রাইভ ফর্ম্যাটে তুলনাহীন গ্রিপ সরবরাহ করে, যা উচ্চ গতির জন্য প্রয়োজনীয়।

যদি কেউ একটি লাল অ্যাক্সেলা হ্যাচব্যাকের 2200 সিসির টার্বো-ডিজেল ফোর হুইল ড্রাইভ মডেল 35-40 লক্ষ টাকায় কিনে, বিবিআর টিউন করে, এইচকেএসের নিষ্কাশন ব্যবস্থা ইনস্টল করে, একটি বড় টার্বোচার্জার ইনস্টল করে এবং ইনটেক সিস্টেমটি আপগ্রেড করে, এটি একটি দুর্দান্ত।

তিনি সারা শরীর জুড়ে এয়ারোডাইনামিক বডিকিটস ইনস্টল করেন, যার অর্থ যদি তিনি গাড়ির পিছনে আরও 10 লক্ষ টাকা ব্যয় করেন তবে তিনি এই গাড়ীটি একটি দৈনিক চালিত 300 হর্স পাওয়ার জ্বালানী ব্যয় সাশ্রয়ী হট-হ্যাচ হিসাবে তৈরি করতে সক্ষম হবেন মোট ৪৫-৫০ লক্ষ টাকা।

মানুষকে দুর্বল এবং পারফরম্যান্স-ভিত্তিক করে তোলে এমন একটি জিনিস হ’ল আপনি যদি ট্র্যাকে যান তবে আপনি স্টক হোন্ডা সিভিক টাইপ আর এবং স্টক মিতসুবিশি ইভো -10 এর সাথে প্রতিযোগিতা করতে সক্ষম হবেন যার দাম 90 লক্ষ টাকা।

অজিলা খেলাধুলা এবং নির্বাহীর সংমিশ্রণ হিসাবে পূর্বের বিবৃতি ছাড়াও, গাড়ীর শক অ্যাবসবারারটি ন্যাশনাল করা হয়েছে যাতে ডেইলি ইউজার ড্রাইভারের সাথে সিভিকের মতো পিছনের সিটে বসে গাড়িটি কিছুটা অস্বস্তি বোধ না করে তা নিশ্চিত করে।

হার্ড ড্রাইভিং করার সময় নাগরিকের মতো সর্বাধিক স্থিতিশীলতা রয়েছে এবং বডি রোলের এক ফোঁটাও নেই। অন্য কথায়, মাজদার ইঞ্জিনিয়াররা খেলাধুলার অনুভূতি এবং স্বাচ্ছন্দ্যের ভারসাম্য রক্ষা করেছে

8) গাড়ির ব্রেকগুলি এই বাজেটে সেরা। 4 টি চাকার উপর ডিসি এ বি এস ব্রেক, যার ব্রেক ফোর্স বিতরণ খুব সুন্দর যা এই গাড়িটি স্বাভাবিক ব্রেকিংয়ের স্বাভাবিক প্রিমিয়ামের চেয়ে ধীর করে তোলে এবং হার্ড ব্রেকিংয়ের প্রিমিয়ামের অনেক আগে পার্ক করে যা একটি জরুরি পরিস্থিতিতে জীবন এবং মৃত্যুর মধ্যে একটি রেখা আঁকতে পারে।

এছাড়াও, রক্ষণাবেক্ষণ মূল্য বিন্দু থেকে, প্রিমিয়ামের 30-40 হাজার কিলোমিটারের ব্রেক প্যাডগুলি পরিবর্তন করা প্রয়োজন, তবে মাজদা এক্সিলারেটর ব্রেক প্যাডগুলি একবার প্রতিস্থাপিত হয়ে প্রায় 80-90 হাজার কিলোমিটার পরিবেশন করতে পারে।

9) মাজদার প্র্যাকটিভ সেফটি সিস্টেমটি খুব ভাল: – i) অ্যাডাপটিভ ক্রুজ কন্ট্রোল, ii) লেনের প্রস্থান এবং লেন কিপ অ্যাসিস্ট, iii) প্রাক-সংঘর্ষ ব্রেকিং সিস্টেম, iv) অটো হাই-বিম ইত্যাদি

সব মিলিয়ে আমার ব্যক্তিগত মতামত অনুসারে, প্রিমিও-এলিয়নের বাজেটে এই গাড়িটি কেনা একশগুণ ভাল সিদ্ধান্ত।

এখন আসুন মাজদা অ্যাক্সেলা গাড়ি এবং কিছু ভুল ধারণা যা আজ আমি ভেঙে যাব:

1) অনেক লোক বলে যে মাজদা অজিলার পিছনে খুব কম জায়গা আছে, আপনি বেলা ব্লাহ করতে পারবেন না। পশ্চিমা দেশগুলির মানুষের উচ্চতা বেশি হওয়ায় এবং সামনের আসনের যাত্রীদের আরও লেগরুম পেতে সিটগুলি পিছনে টানতে হবে বলে আমাদের দেশের অনেক লোক বিদেশী পর্যালোচকদের মতামত দেখে বিভ্রান্ত হয়েছেন।

তবে বাংলাদেশি যারা পর্যালোচনা করেছেন তাদের পক্ষে কমপক্ষে এখনও আমি এমন পর্যালোচনা দেখিনি যেখানে বলা হয় যে লেগরুমটি খুব সীমাবদ্ধ। তবে হ্যাঁ, যদি আপনার পরিবারটি প্রায় 6 ফুট লম্বা হয় এবং সকলেই চর্বিযুক্ত হয় তবে পরিবারের প্রত্যেকের পক্ষে একসাথে ভ্রমণ করা কিছুটা অস্বস্তিকর হবে, এমনকি প্রিমিয়ামেও।

2) প্রত্যেকে জানে যে প্রিমিও-ইলেনের ক্ষেত্রে এলপিজি ব্যবহার করা যেতে পারে, এবং অনেক লোক বলে যে সিএনজি আরও বেশি করে করছে (যা ইঞ্জিনের পক্ষে ভাল নয়) তবে কমপক্ষে আমি এখনও এক্সিলায় কারও সম্পর্কে শুনিনি। তবে হ্যাঁ, আমি মনে করি না আপনি যদি কোনও ভাল রূপান্তর কর্মশালা থেকে সিক্যুয়াল ইনজেকশন দিয়ে এলপিজি করেন তবে কোনও সমস্যা হবে।

3) গাড়ির মডেল এবং অবস্থার উপর নির্ভর করে দাম প্রিমিয়ামের সমান, তবে পুনরায় বিক্রয় মূল্য কিছুটা কম। এটি গাড়ির দোষ নয়, এটি টয়োটা-পাগল বাঙালির দোষ। আজকের মতো ভাল গাড়ীটির পুনঃ বিক্রয় মূল্য খুব কম।

৪) একটি প্রবাদ আছে যে মাজদার অংশগুলি মোটেই পাওয়া যায় না এবং যা পাওয়া যায় তা ব্যয়বহুল। এখানে আমি একটি জিনিস বলতে চাই। টয়োটার অংশগুলির প্রাপ্যতা সম্পর্কে লোকেরা প্রচুর কথা বলে।

হ্যাঁ, টয়োটার অংশগুলি খুব উপলভ্য এবং সস্তা, তবে সেগুলি চীনা এবং থাই প্রতিরূপ অংশ। লোকেরা এই চীনা অংশগুলিকে তাদের করলা এবং প্রিমিলিওনে রাখে এবং তারা জাপানের আসল অংশগুলির 4 টির মধ্যে 1 টি সরবরাহ করে।

যদি কেউ টয়োটা জেনুইন জাপানি অংশ কিনতে যায় তবে তাকে এটির মতো গতি পেতে হবে তবে একবার সে এটি পরিচালনা করে ব্যবহার করলে তার ইঞ্জিনটি ভাল হবে এবং বহু দিনের জন্য তার অংশগুলির প্রয়োজন হবে না।

মাজদায় ঠিক এটাই ঘটে। মাজদা এক্সিলারেটরটির বাংলাদেশে প্রচুর উপস্থিতি রয়েছে তবে প্রিমিও-ইলেনের তুলনায় এটি ২০০ in সালে ১ is জন।

এ কারণে এক্সিলারেটর অংশগুলিও অংশের বাজারে কম পাওয়া যায়। এখন যারা এক্সিলিটর যন্ত্রাংশ বিক্রি করেন তারা জানেন যে এক্সেল মালিকরা কখনই চাইনিজ অংশ কিনবেন না, সুতরাং যে কেউ এক্সিলারেটর যন্ত্রাংশ দেশে নিয়ে আসে, বেশিরভাগ সময় তারা আসল জাপানি অংশ নিয়ে আসে, যার দাম এবং স্থায়িত্ব টয়োটার প্রতিলিপি অংশগুলির চেয়ে বেশি।

এটি, ধরুন যে প্রতিরূপ অংশ ব্যবহার করে কোনও প্রিমিয়াম-মালিককে একটি গাড়ি নিয়ে ওয়ার্কশপে যেতে হবে এবং অংশে বছরে তিনবার পরিবর্তন করতে হবে, তারপরে অক্ষ-মালিককে জেনুইন পার্টস ব্যবহার করে বছরে একবার এটি করতে হবে।

এখন বুঝতে পারছেন কে সুবিধা পেয়েছে। আগের দিন আমি কারহাব গ্রুপে অ্যাক্সেলা সম্পর্কে পোস্ট করার আগে, আমি এতটাই হতাশ হয়ে গিয়েছিলাম যে লোকেরা মাজদার অংশগুলি সম্পর্কে কেবলমাত্র ঝুঁকির মধ্যে পড়েছিল যা আমি আজ বিশদে যেতে পারি না।

৫) মাজদা অ্যাক্সেলা হাইব্রিড মডেল কেনার ফলে তেলের ব্যয় সাশ্রয় হবে, তবে গাড়ি কেনার জন্য ১৫০০ সিসির বেশি দাম পড়বে ৩-৪ লাখ টাকা বেশি কারণ 2000 সিসির হাইব্রিডের আমদানি শুল্ক, নিবন্ধকরণ এবং এআইটি সবই 1500 সিসির বেশি হবে।
সুতরাং এটি ছিল গভীর-পর্যালোচনাতে বাংলাদেশের মাজদা অ্যাক্সেলা দাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button